Trending

রান্না করার রেসিপি বিরিয়ানি

ঝটপট রান্নার রেসিপি

রান্না করার রেসিপি: পছন্দ করে না এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া খুবই মুশকিল। তবে আমরা যদি রেস্টুরেন্টের বিরিয়ানী খেতে যাই সেটা

অনেক ব্যয়বহুল। কিন্তু আমরা চাই বাড়িতে থাকা  উপকরণ দিয়েই সহজেই Biryani রান্না করার সহজ কৌশল শিখতে যাতে

করে  বাড়ীতে বানিয়ে নিতে পারি মজাদার বিরিয়ানি । তাই আসুন কি ভাবে সহজেই বাড়ীতে আমরা Biryani রান্না করার

সহজ কৌশল শিখে বিরিয়ানি রান্না করতে পারি । Biryani রান্না করার সহজ কৌশল বিষয়ে  A to Z  বিস্তারিত আপনাদের

সাথে আলোচনা করব।

বিরিয়ানি(Briani) কি?

বিরিয়ানি হল বিশেষ ধরনের খাবার যা সুগন্ধি চাল মাংস ও গরম মসলা দিয়ে রান্না করা হয়। এটা খুবিই মুখরোচক ও

মসলাদার খাবার।বিরিয়ানি দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোতে এক বিশেষ ধরনের খাবার কালোজিরা, চিনিগুড়া মাংস ও গরম

মসলার সংমিশ্রণে তৈরী করা হয়। এটা আসলে ভারতীয় উপমহাদেশের মুসলমানদের মাধ্যমে উৎপত্তি হয় পরবর্তীতে

ভারত বাংলাদেশ ও মিয়ানমার সহ বিশ্বের নানান জায়গায় ছড়িয়ে পড়েছে। এই খাবারটা সাধারণত বিশেষ অনুষ্ঠান

পরিবেশিত হয়।

বিরিয়ানির উৎপত্তি/ ইতিহাস

বিরানির উৎপত্তি সম্পর্কে অনেকেই দ্বিমত পোষণ করে থাকেন। তবে ভারতের দিল্লিতে মুসলিম সম্প্রদায়ের মধ্যে প্রথম

বিরিয়ানি রান্নার প্রচলন শুরু হয়েছিল বলে ধারণা করা হয়। আবার অনেকের মতে ভারতের দক্ষিণ অঞ্চলে হায়দারাবাদ

বিরানির উৎপত্তি হয় বলে ধারনা করেন। তাছাড়া অম্বর ,সিঙ্গেল, তাঞ্জাভুর ও কেরালা সহ আরো অন্যান্য রাজ্যে যেখানে

মুসলিম সম্প্রদায় ছিল সেখান থেকেও বিরিয়ানির উৎপত্তি হয় বলে ধারণা করা হয়।

রান্না করার রেসিপি  বিরিয়ানির প্রকারভেদ কিকি?

বিরিয়ানি কে আসলে মূলত দুই ভাগে ভাগ করা হয়েছে একটি হয়েছে

  1. পাক্কি বিরিয়ানি।
  2. কাচ্চি বিরিয়ানি।

এছাড়াও আমরা এই দুই জাতের বিরিয়ানি বিভিন্ন উপকরণ যেমন খাসির মাংস, মুরগীর মাংস, গরুর মাংস ,ডিম দিয়েও রান্না করতে পারি। এবার আসুন এই দুই জাতের বিরিয়ানি কিভাবে রান্না করতে হয় বিস্তারিত আলোচনা করবো।

পাক্কি বিরিয়ানি:

আমরা যদি পাক্কি বিরিয়ানি রান্না করতে চাই রান্না করা ছাগলের মাংস আধা সেদ্ধ চালের সাথে ভালোভাবে মিশিয়ে বাতিলের মুখ আটা দিয়ে বন্ধ করে রান্না করতে হয়।

কাচ্চি বিরিয়ানি:

কাচ্চি বিরিয়ানি রান্না করার জন্য প্রথমে ছাগলের মাংস, টকদই ও বিভিন্ন ধরনের মসলা দিয়ে ম্যারিনেট করা কাঁচা মাংস আধা সিদ্ধ চালের সঙ্গে একসাথে রান্না করতে হয়।

কি কি উপকরণ লাগে বিরিয়ানি রান্না করতে?

পাক্কি বিরিয়ানি  এবং কাচ্চি বিরিয়ানি  রান্না করার জন্য যে সমস্ত উপকরণ লাগে সে উপকরণগুলোর নাম বিস্তারিতভাবে নিম্নে প্রদান করা হলো।

ধরে নেই আমরা এক কেজি চালের বিরিয়ানি পাক করব। তার জন্য যে সমস্ত উপকরণ লাগবে সেই সমস্ত উপকরণ এর

হিসাব আপনাদের দেওয়া হলো। আপনারা আপনাদের এই হিসাব ধরে মসলা হিসাব করবেন চাল ১ কেজি, ছাগলের মাংস ২

কেজি, গোলমরিচ চারটা, তেল ১কাপ, টক দই ১ কাপ, ঘি ১ টেবিল চামচ, আদা রসুন পেঁয়াজ বাটা ১ টেবিল চামচ করে, ধনে,

জিরা, এলাস, লবঙ্গ, দারচিনি ১/২ চা চামচ করে, হলুদ গুঁড়া ১ চা চামচ, কাঁচামরিচ বাটা ২ চা চামচ, ১ কাপ  কাঁচামরিচ এবং

৫ থেকে ১০ টি কাচাঁ মরিচ।

Biryani রান্না করার সহজ কৌশলে বিরিয়ানি রান্নার ধাপ সমূহ

প্রথমে মাংস ভালোভাবে ধুয়ে নিতে হবে। তারপর প্রেসার কুকারে তেল, তেজপাতা, দারুচিনি, এলাচ, পেঁয়াজ কুচি, পেঁয়াজ

বাটা, আদা, রসুন বাটা, জিরা, হলুদ, কাঁচামরিচ, লবণ স্বাদমতো ও বিরানির মসলা দিয়ে মাখিয়ে আলু দিয়ে রান্না করে নামিয়ে

রাখুন। তারপর অন্য হাড়িতে তেজপাতা, এলাচ দারুচিনি, ভালোভাবে দিয়ে ধুয়ে  রাখা চাল দিয়ে ভাল করে ভেজে নিন ।

এরপর পরিমাণমতো পানি দিয়ে দিন আধা সিদ্ধ হওয়ার পর। খাসির  মাংস মাখিয়ে ভালোভাবে মিশিয়ে নিন এরপর

কিছুক্ষন অপেক্ষা করুন এবং আপনার কাংখিত বিরানি রান্না শেষ হলে নামিয়ে নিন।

বিরিয়ানি পরিবেশন

বিরিয়ানি বিভিন্ন রকম ভাবে পরিবেশন করা যায় । আসলে পরিবেশনা নির্ভর করে বিরানির প্রকারের উপর। তবে আপনি

বিরিয়ানির সাথে সিদ্ধ ডিম, লেবু ,শসা, গাজর, টমেটো, কাঁচা মরিচ,কাঁচা পেঁয়াজ, সামান্য চাটনি দিয়ে সহজেই গরম গরম

পরিবেশন করতে পারেন । পরবর্তীতে কোমল পানি দিয়ে পরিবেশন  শেষ করতে পারেন।

Biryani রান্না করার সহজ কৌশল শেখা কেন প্রয়োজন?

বিরিয়ানি রান্না শেখার অনেকগুলো কারণ। আছে যেমন স্বাস্থ্যসম্মতভাবে খাবার প্রস্তুত করা যায় এবং আর্থিক দিক থেকে

আমরা উপকৃত হতে পারি। তা ছাড়া আমরা যেকোন সময় আমাদের বাড়িতে আত্মীয় স্বজন আসলে খুব অল্পসময়ের মধ্যে

বাড়ির উপকরণ দিয়ে রান্না করা যায়।

(আপনি এই সাইটি দেখতে পারেন)

শেষ কথা Biryani রান্না করার সহজ কৌশল সম্পের্কে:

পরিশেষে বলতে রান্না করার রেসিপি পারি বিরানী রান্না যেমন একদিকে খুবই সহজ অন্যদিকে খুবই মজাদার। তাই বিরানী রান্না সম্পর্কে

আপনাদের যদি আরো কোন প্রশ্ন  বা জানার ইচ্ছে থাকে আমাদের কমেন্ট সেকশনে গিয়ে আপনার মতামত পেশ করুন।

পরবর্তী লেখায় আপনার মতামতের উত্তর দেব।

ধন্যবাদ কষ্ট করে লেখাটি পড়ার জন্য।

অন্যান্য বিষয় পড়তে পারেন:

১. Practical Action Circular

2 Comments

  1. Pingback: mobile-love-SMS

Leave a Reply

Your email address will not be published.