টবের জন্য মাটি তৈরি বা ছাদ বাগান করার পদ্ধতি

ফুল গাছের টব তৈরি

বাগান বা টবের মাটি তৈরী (how-to-make-soil-for-garden) করা আদের জন্য খুবই প্রয়োজন।  আমরা জানি বাগান বা

টবে ফুলের বা ফলের চারা লাগানোর জন্য মাটি হচেছ আসল উপাদান। কিন্তু এটা আমাদের ভূল ধারনা, মাটির মধ্যে যে

গাছের জন্য খাদ্য উপাদান থাকে, সেটাই মূলত গাছের আসল উপাদান। মাটি হচ্ছে গাছকে খাদ্য সরবারহের একটি মাধ্যম

মাত্র । যার উৎকৃষ্ট প্রমান হলো হাইড্রোফনিক চাষ আবাদ। যে চাষ আবাদ মাটি ছাড়াই হচ্ছে ।  আজকে আমরা এখানে

একটি গাছের জন্য কি কি খাদ্য উপাদান লাগে, অথবা মাটির মধ্যে কি কি খাদ্য উপাদান থাকলে? সেই মাটিকে আমরা গাছ

লাগানোর সঠিক মাটি হিসেবে বিবেচনা করবো, সে বিষয়ে পরিপূর্ণ ধারনা দিব।

বাগান / টবে চারা লাগানোর জন্য মাটি তৈরী

মাটি তৈরি কথাটি একটু অন্যরকম শোনা যাচ্ছে । কারণ আমরা জানি মাটিতে তৈরি করাই থাকে, কিন্তু এখানে আবার

আমরা কিভাবে মাটি তৈরি করব বলা হলো। আসলে মূল পার্থক্যটা হচ্ছে  আমরা যে মাটি সচরাচর পিই সেই মাটিটা

আমাদের ল্যাবরেটরীতে পরীক্ষিত না। এই মাটিতে গাছের জন্য যে খাদ্যোপাদান থাকা দরকার সে খাদ্য উপাদান কতটুকু

পরিমান আছে তা আমাদের জানা নিই।

আর তাই আমরা চেষ্টা করি একটি গাছের জন্য যে ১৬ প্রকারের খাদ্য উপাদান দরকার তার সবগুলো খাদ্য উপাদান যেন

আমাদের দেওয়া মাটিতে থাকেন। এর জন্যই মূলত আমি এখানে মাটি তৈরির কথাটি বলেছি। এই মাটি তৈরি মানে আমরা

বেশকিছু উপাদান এই মাটি গুলোর সাথে মিশাবো যার মধ্যে একটি গাছের খাবারের জন্য যে খাদ্য উপাদান প্রয়োজন,

সেই উপাদান গুলো যেন সব গুলোই বিদ্যমান থাকে। তবেই আমরা সেই মাটিতে আদর্শ মাটি বলব, এবং সে মাটিকেই

আমরা গাছের জন্য উৎকৃষ্ট মাটি হিসেবে বিবেচনা করতে পারব। তো চলুন আমরা নিচে মাটি তৈরি করি।

মাটি গঠনের উপাদান:

মাটি মূলত ৪টি পদার্থ দ্বারা গঠিত যথা -১। খনিজ পদার্থ (শতকরা ৪৫% ভাগ) . ২। বায়ু (শতকরা ২৫% ) ভাগ। ৩। পানি

(শতকরা ২৫%) ভাগ। ৪। জৈব পদার্থ ( শতকরা ৫%) ভাগ।  এই সবগুলো উপাদান মিলেই মূলত মাটি গঠিত হয়ে থাকে।

আমার লেখা প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত পড়তে থাকেন তা হলে  আপনি বাগান, টবে অথবা ছাদ বাগান করার জন্য যে ভাবে

মৃত্তিকা  (how-to-make-soil-for-garden) তৈরী করতে হয় সে বিষয়ে পরিপুর্ণ ধারনা পাবেন।

মাটি কাকে বলে?-

মাটি হলো সাধারনত ভূ-পৃষ্টের যে নরম আবরণ তাকে সাধারনত আমরা মাটি বলে থাকি তাছাড়া যদি আমরা যদি বলি

আমরা ভূ-পৃষ্টের যে উপরি ভাগে যে খানে  আমরা চলাফেরে করি ভিবিন্ন প্রকার গাছ পালা লাগাই তাকেই মূলত মাটি বা

মৃত্তিকা  বলে থাকি।

মাটির প্রকার ভেদ  ধরণঃ

আমরা যানি মাটি সাধারনত ৪ প্রকারের হয়ে থাকে। সে গুলো হলো

১. বেলে মাটি

২. কর্দম মাটি

৩. দো-আঁশ মাটি

৪. পলি মাটি

আমি আর মাটির প্রকার ভেদ নিয়ে আলোচনা না করে কিভাবে আপনাদের মটি (how-to-make-soil-for-garden) তৈরী

করতে হয় সেই বিষয়ে ধারনা দিব । মাটি চার ধরণের হলেও আমরা বাগানের বা টবের মাটি তৈরী করার জন্য নির্বাচন

করবো দো-আঁশ মাটিকে , কারণ দো-আঁশ মাটিতে গাছের খাদ্য উপাদান বেশি পরিমাণ থাকে । তাই দো-আঁশ টিই বাগান বা

ছাদ কৃষি করার জন্য উপযুক্ত মাটি ।

চলুন এবার ধাপেঁ ধাপেঁ মাটি(how-to-make-soil-for-garden) তৈরীর বিষয় সমূহ বর্ণনা করা যাকঃ

যখন আমরা গাছের জন্য মাটি তৈরি করব, তখন একেবারে তৈরি করা যাবে না। আমাদের অনুসরণ করতে হবে কিছু

পদ্ধতি। যে পদ্ধতির মাধ্যমে আমরা মাটি তৈরি করব। কারণ আপনি মাটিতে মেশানোর জন্য সবগুলো উপাদান একেবারে

মিশিয়ে ফেলেন তাহলে সেই ক্ষেত্রে আপনি বুঝতে পারবেন না। কোন উপাদান, কতটুকু পরিমান আপনার দিতে হবে? তাই

চলুন আমরা মাটি তৈরির প্রক্রিয়া টি ধাপে ধাপে সম্পন্ন করি। যেন আমাদের মাটিটা সুন্দর হয়। চলুন এবার তাই ধাপে ধাপে

মাটি তৈরি বিস্তারিতভাবে বর্ণনা করি।

ধাঁপ-১ঃ প্রথমে আমরা মাটি সংগ্রহ করবো কিন্তু সেই মাটি যেন হয় রোদ্রের মাটি , কারণ রোদ্রের মাটিতে রোগ জীবানু কম থাকে বিধায় গাছ বা ফলের মধ্যেে রোগ জীবানু বা পোকামাকড়ের আক্রমণ কম হয়।

ধাঁপ-২ঃ মাটিকে আমরা ভালবাবে রোদ্রে শুকিয়ে নিবো যাতে করে রোগ জীবানু মারা যায়।

ধাঁপ-৩ঃ মাটি রোদ্রে শুকানোর পর মাটির সাথে জৈব সার সহ অন্যান্য উপাদান মিশাতে হবে।

উদাহরণ  হিসেবে ধরা যাকঃ  ১৫০ কেজি মাটির সাথে আমরা যে যে উপাদান মিশাবো তার একটি হিসাব আপনাদের সামনে উপস্থাপন করা হলো।

ক) মাটি ১৫০ কেজি।

খ) জৈব সার ( ভার্মী কম্পোষ্ট অথবা কুইক কম্পোষ্ট অথবা গোবর সার অথবা পিট কম্পোষ্ট অথবা ব্লাক সোলজার কম্পোষ্ট) যে কোন একটি -৫০ কেজি।

গ) ‍চুলার ছাই -২ কেজি ( যদি থাকে)

ঘ) সরিষার খৈল -২৫০ গ্রাম।

ঙ) টি. এস. পি সার-১০০ গ্রাম।

চ) মিউরেট অব পটাস-১০০ গ্রাম।

ছ) পাথর চুনা-৫০ গ্রাম।

জ) নিম পাতার গুড়া-৫০ গ্রাম।

যদি পাড়া যায় তাহলে সিং গুড়া-৫০ গ্রাম, শুকনো মাছের গুড়া -৫০ গ্রাম দিতে পাড়েন।

প্রক্রিয়া:

উক্ত সবগুলো উপাদান মাটির সাথে মিশিয়ে ৬ থেকে ৭ দিন পলিথিন দিয়ে ঢেকে রাখতে হবে। তার পর আবার ৪- থেকে ৫

দিন খোলা রাখতে হবে। তার পর উক্ত মাটি বাগানের যে কোন ধরনের গাছ লাগানোর জন্য আপনি ব্যবহার করতে

পারবেন। আপনি যদি এই নিয়মে মাটি তৈরী করে বাগান বা ছাদে গাছ লাগান তাহলে আপনাকে ১০০% গ্যারান্টি দিচ্ছি

আপনার গাছে ফুল বা ফল পর্যাপ্ত পরিমান আসবে  ইনশাল্লাহ্।

পরিশেষে বলতে পারি আমার এই লেখা আপনাদের যদি উপকারে আসে তাহলে আমাকে লিখে জানাবেন। এবং আপনাদের

যদি কৃষি বিষয়ে কিছু জানার ইচ্ছে থাকে তাহলে আমাকে জানালে পরবর্তীতে আমি সেই বিষয়ের উপর লিখে আপনাদের

উপকার করার চেষ্টা করবে। যারা আমার এই বিষয়ে সম্পূর্ণ লেখা টি পরেছেন তাদের অসংখ্য ধন্যবাদ।

(  এই মাটি তৈরীর ভিডিও দেখতে চোখ রাখতে পারেন আমাদের ইউটিওব চ্যানেলে যে খানে আমরা হাতে কলমে দেখিয়েছি

কি ভাবে আপনি আপনার টবের জন্য মাটি তৈরী করবেন।)

আপনার আরো তথ্য জানার জন্য কিছু বিষয় দেয়া হলো যা আপনার কাজে লাগতে পারে বলে আমার মনে হয়।

1.Upozila Project Officer / Job in Care Bangladesh

2.H.S.C Results-2022/H.S.C Results

3.Valentin’s Day বিশ্ব ভালবাসা দিবস এর শুভেচ্ছা

Leave a Reply

Your email address will not be published.