Tips & Tricks
Trending

ধনী হওয়ার সহজ উপায়

সহজে ধনী হয়ার কৌশল

ধনী হওয়ার সহজ উপায় এই বিষয়টি পড়লেই আপনি সহজেই ধনী হয়ে যেতে পারবেন। ধনী হওয়ার সেই মূল বিষয়গুলো যে বিষয়গুলো কাজে লাগালে আপনি সহজেই ধনী হয়ে যেতে পারবেন। ধনী হতে কে না চায়? আমরা সবাই চাই ধনী হতে । কিন্তু ধনী হওয়ার জন্য বা সফল হয় কতজন? তাই আমরা হতে পারিনা ধনী।

আমরা পূরণ করতে পারিনা আমাদের সেই অনাকাঙ্ক্ষিত চাহিদা গুলো। থেকে যায় আমাদের সাধ্যের বাহিরে। তাই আজ আমি আপনাদের জন্য কিছু বিষয় নিয়ে আলোচনা করব, যে বিষয়গুলো ফলো করলে আপনি সহজেই ধনী হতে পারবেন। আপনাকে কেউ আটকাতে পারবেন না ইনশাআল্লাহ।

আমরা বলে দেবো সেই সহজ উপায় গুলো, যেগুলো মানলে আপনাকে ধ্বনি বানিয়ে দিবেন। তো আসুন আমরা সেই ধনী হওয়ার সহজ উপায় গুলো নিয়ে আলোচনা করি।

ধনী হওয়ার সহজ উপায়

ধনী হতে গেলে আপনাকে বেশ কিছু বিষয় নিজের মধ্যে আয়ত্ত করতে হবে। আপনার যদি এই অভ্যাসগুলো নাও থাকে, সে অভ্যাসগুলো আপনার মধ্যে  গআয়ত্ত করতে হবে। আপনি যদি এই অভ্যাসগুলো প্রতিদিন প্রাকটিসের মাধ্যমে নিজেই আয়ত্তে আনতে পারেন, তবে আমি আপনাকে বলে দিতে পারি আপনি ধনী হবেন ইনশাআল্লাহ।

আপনি কয়েক বছরের মধ্যেই আপনি অনেক টাকার মালিক হয়ে যাবেন। তো আসুন আমরা যে বিষয়গুলো, আমাদের অনুসরণ করতে হবে সেই বিষয়গুলো নিয়ে নিচে বিস্তারিত আলোচনা করব।

প্রয়োজনীয় দক্ষতা অর্জন করা

প্রয়োজনীয় দক্ষতা অর্জন ছাড়া আপনি কখনোই ধনী হতে পারবেন না। ধরেন আপনি একটি ব্যবসা করে ধনী হতে চান। কিন্তু সেই ব্যবসা সম্পর্কে আপনি জানেন না তাহলে আপনিই বলেন আপনি কীভাবে সে ব্যবসাটি করবেন । অপরের উপর নির্ভরশীল হয়ে যদি আপনি ব্যবসা করতে চান তবে কখনোই আপনি সেই ব্যবসা থেকে সফল হবেন না।

আপনি সেই ব্যবসা থেকে বিফলতার সম্ভাবনা ১০০ ভাগ। এইজন্য আপনি যে কোন কাজই করেন না কেন, সেই কাজ করার আগে সেই কাজে আপনি ১০০ ভাগ দক্ষ থাকলে তবেই সেই কাছ থেকে আপনি শত ভাগ সফলতা পাবেন। এই জন্য আপনি যে কোন ব্যবসা শুরু করার আগে সেই ব্যবসা সম্পর্কে লেখাপড়া করে আপনাকে দক্ষ হতে হবে ।তবে আপনি খুব সহজেই সফল হতে পারবেন।

সময়কে কাজে লাগানো

উন্নত বিশ্বের দিকে তাকালে দেখা যায়, তারা সময়কে মাপে টাকার পরিমাপে। তারা সময়কে বলে থাকে টাইমস ইজ মানি। আর আমরা আমাদের সময়কে নষ্ট করেদিতেছি নিজের অজান্তেই। তাই আপনি যদি আপনার সময়কে টাকে টাকার অংকে দেখেন তাহলে  আপনি কখনোই সময় নষ্ট করবেননা তাতে করে আপনি সহজেই  ধনী হতে পারবেন।

কারণ আপনার প্রতিটা সময় আপনার কাছে মূল্যবান, এবং প্রতিটা সময়ই আপনাকে কাজে লাগাতে হবে। আপনার ব্যবসার কাজেই হোক, আর আপনার চাকরির ক্ষেত্রে হোক। আপনি যদি আপনার সময়কে মূল্য না দেন একসময় আপনি সফল হতে পারবেন না। এজন্য আমাদের প্রতিটা সময় সতর্ক থাকতে হবে, আমরা যেন সময়কে মূল্যায়ন করি, এবং সময়ের কাজ লাগাই। তবে আমরা জীবনে ধনী হতে পারব।

সঠিক সিদ্ধান্ত নেওয়া

সঠিক সময়ে নিতে হবে, আমাদের সঠিক সিদ্ধান্ত । কারণ একটি সিদ্ধান্তই বদলে দিতে পারে, আপনার জীবনকে। একটি সিদ্ধান্ত ঘুরিয়ে দিতে পারে আপনার জীবন গল্পকে। এইজন্য আমাদেরকে জানতে হবে কোন সময়ে কোন সিদ্ধান্তটা নিতে হবে। যারা সঠিক সময়ে, সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে পারেননা তারা জীবনে অনেক উন্নতি করতে পারেনা।

আর তাই সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য আপনি বিভিন্ন জায়গা থেকে জ্ঞান অর্জন করতে পারেন। যার জন্য আপনি দেখতে পারেন বিভিন্ন বই, দেখতে পারেন বিভিন্ন ভিডিও। কারণ আমরা যদি সঠিক সিদ্ধান্ত না নেই সে ক্ষেত্রে আমাদের সফলতা পরিবর্তে বিফলতা আসতে পারে বিরাট পরিসরে।

বিনিয়োগ করার মানসিকতা থাকা

অনেক সময় আমরা অনেক টাকা পয়সা ইনকাম করি। কিন্তু আমরা আমাদের বিনিয়োগের মন-মানসিকতা না থাকার কারণে নিজেকে গুটিয়ে রাখি। যার কারণে আমরা আমাদের কাঙ্খিত জায়গায় পৌঁছাতে পারি না। কারণ আমরা সব সময় চিন্তা করি সঞ্চয় করার কিন্তু আমরা সেই সঞ্চয় টাকে বিনিয়োগের জায়গায় বা সঠিক জায়গায় বিনিয়োগ করব সে জিনিসটা চিন্তা করি না।

আর তার জন্যই আমরা ধনী হতে পারি না । এই জন্য আপনি যখন ধনী হতে চাইবেন তখন অবশ্যই আপনার অতিরিক্ত টাকা দিয়ে বিনিয়োগ করার চিন্তা করবেন এতে করে আপনি সহজেই ধনী হতে পারবেন।

নিজের ব্যবসা দাঁড় করানো

আমরা পরের ব্যবসা বা পরের চাকরি করতে বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে থাকি। কারণ আমরা নিজেরা কখনো চিন্তা করিনা নিজেদের মত করে কাজ করার। কারণ এই চিন্তাটা আমাদের মাথার মধ্যে আসেনা। আমরা চাই শুধু অন্যের কাজ করতে। আর এই জন্যই আমরা জীবনে ধনী হতে পারি না। আপনি যদি আপনার নিজের ব্যবসা শুরু না করেন,

এবং আপনি যদি সেই জায়গা থেকে ইনকাম না করেন তাহলে আপনি কখনোই ধনী হতে পারবেন না। এই জিনিসটা আপনাদের উদাহরণের মধ্যমে বলতেছি যে ধরুন আপনি অন্যের জায়গায় কাজ করেন, সে আপনাকে কখনোই তার লাভের অতিরিক্ত টাকা আপনাকে দিবে না।

সে শুধু আপনাকে পারিশ্রমিক দিবে কিন্তু আপনি যদি আপনার ব্যবসায় কাজ করতেন, একদিকে আপনি যেমন পারিশ্রমিক পেতেন অন্যদিকে আপনি লাভের অংশ পেতেন মালিক হিসেবে। এ থেকেই বুঝা যায় যে, আমরা আমাদের নিজেদের ব্যবসা দাঁড় করাতে হবে এবং নিজেদের ব্যবসায় কাজ করতে হবে তবেই আমরা ধনী হতে পারবো।

ঝুঁকি নেওয়া

ঝুঁকি নেওয়ার ক্ষমতা সবারই থাকে না। আমরা যারা ব্যবসা শুরু করব আমাদের বুঝেশুনে দক্ষতা কাজে লাগিয়ে, আমাদেরকে ব্যবসায় ঝুঁকি নিতে হবে। কারণ ইংরেজিতে একটি কথা আছে নো রিক্স নো গেইন। আমরা যদি জীবনে উন্নতি করতে চাই, জীবনে সফলতা চাই, জীবনে ধনী হতে চাই তবে আমাদের প্রতিটা ক্ষেত্রেই ঝুঁকি নিতে হবে।

কারণ ঝুঁকি নিয়ে আপনি যখন ব্যবসা করবেন তখন সেই ব্যবসা থেকে আপনার লাভের সম্ভাবনা বেশি থাকে। আপনি যদি ব্যবসার ক্ষেত্রে ঝুঁকি না নেন কোনদিনও আপনি ধনী হতে পারবেন না। তাই ধনী হতে গেলে অবশ্যই আপনাকে  ঝুঁকি নিতে হবে।

ব্যবসায় ধৈর্যধারণ করা

ধৈর্যধারণ করা খুব একটা কঠিন কাজ। বিশেষ করে ব্যবসার ক্ষেত্রে, ধৈর্যধারণ করা আরও কঠিন। কারণ আমরা কোন একটি ব্যবসায় বিফলতা আসলে তখন আমরা সেই ব্যবসাটি ছেড়ে দেই। সেই ব্যবসাটি আর করতে চাই না। কিন্তু এই ব্যবসা থেকে আমরা যে জিনিসটা শিখতে পারেছিলাম সেই অভিজ্ঞতা কে কাজে লাগাই না।

আমরা আমাদের বিফলতার কারণ না খুঁজে , বিফলতা কে পুঁজি করে ব্যবসা ছেড়ে দেই। যার পরবর্তীতে আমরা আবার নতুন করে ব্যবসা শুরু করি। এই ব্যবসাটি শুরু করে শিখতে আমাদের বেশ সময় লেগে যায়। এইজন্য একবার হলেই আপনি ব্যবসা ছেড়ে দেবেন না,

বরং ব্যবসা থেকে আপনি কোন বিষয়টা শিখতে পারছেন সেটাকে কাজে লাগানো সহ অন্যান্য যারা একই ব্যবসা করে তাদের সাথে আলাপ আলোচনার মাধ্যমে আপনার নতুন করে পদক্ষেপ নিতে হবে। ধৈর্য ধারণ করতে হবে ব্যবসা থেকে, চূড়ান্ত লাভবান হওয়া পর্যন্ত। তবে আপনি ধনী হতে পারেন।

ধনী হওয়ার ইসলামিক উপায়

আমরা সবাই ধনী হতে চাই। কিন্তু সে চাওয়া টা হয় যেন আমাদের সঠিক উপায়ে। আমরা যেন কখনোই ভুল পথে টাকা আয় করে ধনী না হই। কারণ সে ক্ষেত্রে আমাদের জবাবদিহিতা থাকে। কারণ ইসলাম আমাদের শিক্ষা দেয়, সঠিক উপায়ে উপার্জন করার। আমরা যদি সঠিক উপায়ে উপার্জন না করি সে ক্ষেত্রে ইসলামিক দৃষ্টিতে আমরা অপরাধী।

আর সেই অপরাধ যেন না হয়, কিভাবে ইসলামিক উপায় ধনী হওয়া যায়। সেই বিষয় নিয়ে এখানে আলোচনা করব।

(সুখী হতে কে না চায়? আপনিও চান সেটা আমি নিশ্চিত। তাহলে আমাদের এই পেজটি ভিজিট করুনএই পেজটি

সাজানো হয়েছে শুধু আপনার জন্যই।)

ইসলামি শরিয়া মতে বৈধ ব্যবসা করা

ইসলামী শরিয়া মতে অনেক ব্যবসাকে হারাম বলা হয়েছে। বিশেষ করে যে সকল ব্যবস্থা মানুষের জন্য ক্ষতিকর এবং ওদের

সাথে জড়িত সে সকল ব্যবসাকে আল্লাহতালা হারাম বলেছেন তাই ইসলামী শরীয়তে যেসকল ব্যবসা হালাল সেসকল ব্যবসা

করে আপনি ইসলামিক শরিয়ায় ধনী হতে পারেন ইসলাম সাধারণত তিন প্রজাতির ব্যবসাকে হালাল করেছে।

১. মুদারাবা ২. মুসারাকা ৩. মুরাবাহা। আর বাংলাদেশের ইসলামী ব্যংক গুলো এই তিন পদ্ধতিতে ব্যবসা পরিচালনা করে

থাকে।

সম্পদের যাকাত আদায় করা

আমরা আপাতত দৃষ্টিতে দেখি যাকাত প্রদান করলে সম্পদের পরিমাণ কমে । কিন্তু ইসলামী শরিয়া মতে যাকাত প্রদান

করলে সম্পদের পরিমাণ আরও বাড়ে। সেই বিশ্বাস এবং ভক্তি রেখেই আপনি যদি আপনার সম্পদের নেসাব পরিমাণ

যাকাত আদায় করেন, তাহলে প্রতি বছরই আপনার সম্পদ বাড়বে ইনশাআল্লাহ।

ইসলামী ব্যাংকের সাথে লেনদেন করা

যেহেতু প্রচলিত সকল ব্যাংক সুদি কারবারের সাথে জড়িত। ইসলাম যেহেতু সুদকে করেছেন হারাম, ব্যবসা করেছে হালাল।

তাই আপনার যাবতীয় ব্যাংকিং লেনদেন হোক ইসলামী ব্যাংকের সাথে। যেন আপনি সেখানে সুদের কারবার জড়িত না

থাকেন। তাহলে আপনি ইসলামিক পদ্ধতিতে ধনী হতে পারবেন।

অবৈধ কোন ব্যবসায় না জড়ানো

সকল অবৈধ ব্যবসা কে ইসলাম হারাম করেছে । তাই কোন ধরনের অবৈধ ব্যবসার সাথে জড়িত হওয়া যাবেনা। আপনি

অনেক ব্যবসা আছে যেগুলো ইসলাম বৈধতা দিয়েছে। সে সকল ব্যবসা করে খুব সহজেই ইসলামিক পদ্ধতিতে ধনী হতে

পারবেন।

মানুষের ক্ষতি করে এমন ব্যবসা না করা

অনেক ব্যবসা আছে যেগুলো সরকারিভাবে বৈধ থাকলেও, মানুষের ক্ষতি করে। উদাহরণ হিসেবে বলা যায় মদের ব্যবসা

যদি  সরকার লাইসেন্স দিয়েও থাকে তাহলেও ইসলামিক শরীয়ত মতে এগুলো অবৈধ। এ ধরনের ব্যবসা করে ধনী হওয়া

যাবেনা। তাই মানুষের ক্ষতি করে এ যাতীয় কোন ব্যবসা ইসলামী শরীয়ামতে করা যাবে না।

ধনী হওয়ার লক্ষণ

কথায় বলে টাকার গরম বড় গরম। যার টাকা হয় তার দ্বারের কাছেও যাওয়া যায়না। আর তাই যদি কারো টাকা হয়ে থাকে

তাহলে আপনি কি ভাবে বুঝবেন আমি এখানে আলোচনা করেছি আপনি যদি তাদের মধ্যে নিম্নোক্ত বৈশিষ্ট্য গুলো লক্ষ্য

করেন তাহলে বুঝে নিবেন সেই লোকটির টাকা হয়েছে অর্থৎ সেই লোকটি ধনী হয়েছে।  তো চলুন আমরা  সেই লক্ষণসমূহ

বিস্তারিতভাবে আলোচনা করবো।

কথায় কথায় মানুষকে হেয় করবে

যাদের টাকা হয় তারা মানুষকে মানুষই মনে করে না। তারা সাধারণ মানুষকে মনে করে থাকে গরু-ছাগলের মতো । যে

কোন কাজে বা কথায় কথায় মানুষকে হেয় করে থাকে। আর আপনি যদি তাই দেখেন যে  আপনার কাছাকাছি কোন

মানুষের এই সকল বৈশিষ্ট্য পরিলক্ষিত হয়, তবে বুঝে নেবেন সে মানুষটির টাকা হয়েছে অথবা সেই মানুষটি ধনী হয়েছে।

যেকোনো কাজে টাকার গরম দেখায়

টাকার গরম বড় গরম এর গরম সবাই সইতে পারে না। আর যখন মানুষের টাকা হয় তখন সেই মানুষটি সব জায়গাতে

টাকার গরম দেখায়। সেটা হোক কোন জিনিস কেনার ক্ষেত্রে অথবা হোক সেটা পারিবারিক ঝগড়ার ক্ষেত্রে। তাই যখন

কোন মানুষ টাকার গরম দেখায়, তখন আপনি বুঝে নিবেন সে মানুষটি টাকার মালিক হয়েছে বা সে ধনী  ব্যাক্তিতে পরিণত

হয়েছে।

কেনাকাটা বেড়ে যাবে

যখন মানুষের টাকা হয় তখন স্বভাবতই তার কেনাকাটা বেড়ে যায়। আপনি এই বৈশিষ্ট্যটি দেখলেও বুঝতে পারবেন যে সে

লোকটির টাকা হয়েছে বা ধনী হয়েছে । আপনি যদি বুঝতে চান যে এই ব্যক্তি ধনী হয়েছে কিনা? তাহলে তার কেনাকাটার

দিকে লক্ষ্য রাখুন। যদি আপনি দেখেন যে তার কেনাকাটা আগের থেকে বৃদ্ধি পেয়েছে, তবে বুঝে নিবেন সে লোকটি এখন

ধনী হয়েছে।

বিভিন্ন সৌখিনদ্রব্য কিনবে

যখন মানুষের টাকা হয়, তখন মানুষজন নানা ধরনের সৌখিনদ্রব্য প্রতি কেনাকাটার জোক বেড়ে যায়। তখন তাদের

সৌখিনদ্রব্য কিনার প্রবণতা বেড়ে যায় । আর এই বৈশিষ্ট্য দেখলে আপনারা বুঝতে পারবেন সেই লোকটির টাকা হয়েছে।

বিশেষ দ্রষ্টব্য:মানুষের টাকা পয়সা হলেই উপরোক্ত বৈশিষ্ট্যই দেখা যাবে এমন নয়। আনেক সময় এর ব্যতিক্রম হতে পারে

কারণ সব লোকেরই টাকা হলে এক রকম ব্যবহার করবে  তেমনটা নয়। অনেক ভালো মানুষ আছে যাদের টাকা হলে

তাদের দেখে বোঝাই যায় না। তাদের টাকা হয়েছে। তাই উপরের লক্ষণগুলো দেয়া হলো এগুলো সাধারণত কমন বৈশিষ্ট্য।

ধনী হওয়ার উক্তি

ধনী হতে গেলে বেশ কষ্ট করতে হয়। আর এই কষ্ট সহ্য করেই আপনি হতে পারবেন ধনী । আর ধনী হয়ার কথাকে আমরা

কিছু উক্তির মাধ্যমে প্রকাশ করতে পারি । উক্তিগুলো আপনি শেয়ার করতে পারেন বিভিন্ন ফেসবুকে, এবং আপনার

ফেসবুক ওয়ালে। তাহলে আসুন সেই ধনী হওয়ার উক্তি গুলো আমরা জেনে নেই।

করবো কামাই
আনব টাকা ।
জীবন হবে সুখের চাকা।

 

কাজ করব শক্ত হাতে
হতে হবে ধনী।
তবেই মানবে সমাজের লোক
আমি হব মানি।

 

কাজ করে যাও
আসবে টাকা ।
ঘুরে যাবে ভাগ্যের চাকা।

 

জীবনে যদি না নেও রিস্ক
জীবন তোমার
হবেনা উন্নয়নের জন্য ফিক্সট।

 

ধনে মান আনে
ধনে আনে সুখ।
অল্যেসে দারিদ্রতা আনে
দারিদ্রতায় আনে দুখ ।

ধনী হওয়ার ব্যবসা

আমরা সবাই চাই সংক্ষেপে বা শর্টকাটে ধনী হতে। কিন্তু ধনী হওয়ার কোন শর্টকাট উপায় নাই। আপনি যদি বৈধভাবে ধনী

হতে চান তবে অবশ্যই আপনাকে পরিচয় দিতে হবে ধৈর্যের। কিন্তু কিছু ব্যবসা আছে, যে ব্যবসা গুলো করলে আপনি

সহজেই ধনী হতে পারবেন। আপনি সেই ব্যবসা থেকে অডেল সম্পদের মালিক হতে পারবেন। সেই ক্ষেত্রে বর্তমানে

অনলাইনের ব্যবসাকে অগ্রাধিকার দেওয়া হয়ে থাকে । এখান থেকে আপনি খুব কম সময়ের মধ্যেই অধিক পরিমাণে

সম্পদের মালিক হতে পারবেন।

মিলিয়নিয়ার হওয়ার উপায়

আপনি যখন দেখবেন একটি দেশে অনেক ধনী মানুষ বসবাস করছে কিন্তু আপনি যদি মিলিয়নিয়ার খুজতে যান তাহলে

দেখবেন হাতে গোনা মাত্র কয়েকজন । এর কারণ কি ? আমরা আসলে অনেকেই জানিনা । তাই আপনাদের বলছি আমরা

যদি মিলিয়নিয়ার হতে চাই আমাদের প্যাসিভ ইনকাম বাড়াতে হবে। আরো সহজ করে বলতে গেলে টাকা দিয়ে টাকা

আয়ের পথ করতে হবে। এতে করে টাকা আয়ের পথ বাড়বে। আমাদের মেধাকে কাজে লাগাতে হবে। শরীরকে নয়। তাই

আপনি যদি আপনার মেধাকে কাজে লাগিয়ে প্যাসিভ আয়ের দিকে যান তাহলেই দেখবেন আপনি খুব সহজেই

মিলিয়নিয়ার হয়ে গেছেন।

(আপনি কৃষি বিষয়ে আপডেট ভিডিও পেতে চান? তাহলে আমাদের এই চ্যানেলটি দেখতে পারেন এখানে আপনি পেয়ে

যাবেন প্রতি সময়ে আপডেট কৃষি বিষয়ে ভিডিও)

শেষকথা:

উপরের সবগুলো বিষয় যদি আপনি পড়ে থাকেন তবে আমি ধরে নিতে পারি আপনি ধনী হওয়ার জন্য প্রস্তুত। এখন শুধু

আপনি কাজে লেগে পড়ুন। তাহলেই দেখবেন উপরের টিপসগুলো কাজে লাগিয়ে আপনি কয়েক বছরের মধ্যে ধনী

ব্যক্তিতে পরিণত হয়েছেন। আপনি যদি কাজ করতে গিয়ে কোন ধরনের সমস্যায় পড়েন সেক্ষেত্রে আমাদের কমেন্ট

লিখতে পারেন। আমরা সবসময় প্রস্তুত থাকবো আপনাকে ধনী হওয়ার জন্য সহযোগিতা করতে। আপনি এই বিষয়টাকে

ভালো লাগলে সবার সাথে শেয়ার করবেন। এই জন্য আপনাকে অনুরোধ করা হল। ধন্যবাদ আপনি বিষয়টা কষ্ট করে

পড়েছেন।

আরো পড়ুন:

. সুন্দর কথা বলার কৌশল।

২. গুগলের জানা অজানা নানান তথ্য

৩. স্কুল লাইভ নিয়ে স্ট্যাটাস

৪. গুগলে মানুষ কোন বিষয়ে বেশি সার্চ করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *