Trending

কাজু বাদাম খাওয়ার উপকারিতা

কাজু বাদামের গুনাগুন

কাজু বাদাম খাওয়ার উপকারিতা: কাজুবাদাম হচ্ছে অনেক রোগের ঔষধ । একই সাথে এটা খুব সুস্বাদু। এট একদিকে যেমন কাঁচা খাওয়া যায় অন্যদিকে এটাকে বিভিন্নভাবে খাওয়া যায়। কাজু বাদাম খেতে খুবই সুস্বাদু। এটা রান্নার কাজে ব্যবহার করলে খাবারের পুষ্টিগুণ ও সু-স্বাদুতা বেড়ে যায় অনেক গুনে। যেহেতু কাজুবাদামে রয়েছে অনেক ধরনের পুষ্টিগুণ যেগুলো জানলে আপনি অবাক হয়ে যাবেন। আর তাই আমরা যারা স্বাস্থ্যসচেতন তারা যেন কাজু বাদাম খেতে পারি। তার জন্যই মূলত আমার লেখা।

আমি নিশ্চিত করে বলতে পারি আপনি যদি আমার লেখাটি প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত পড়েন তাহলে আজ হতেই কাজু বাদাম  খাবেন। শেষ পর্যন্ত পড়তে থাকুন এবং কাজুবাদাম সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নিন।

সূচিপত্র

কাজু বাদাম কি?/কাজু বাদাম কাকে বলে?

কাজু বাদাম খাওয়ার উপকারিতা
কাজু বাদাম খাওয়ার উপকারিতা

এটা হলো এক জাতীয় বীজ যা বাদাম হিসেবে পরিচিত। কাজু বাদাম অত্যন্ত সুস্বাদু একটি বাদাম যা কমবেশি সবাই পছন্দ করে থাকে। বৈজ্ঞানিক নাম Anacardium occidentale যাার প্রতি শব্দ হলো Anacardium curatellifolium A.St.-Hil এটি একটি সপুষ্পক অ্যানাকার্ডিয়েসি পরিবারের বৃক্ষ। যা একটি অর্থকরি ফসল। কাজু বাদামের চারা তৈরি করা হয় এর বীজ থেকে । এরা সাধারণত বেলে দো-আঁশ মাটি অথবা পাহাড়ের ঢালে ভাল হয়ে থাকে।

কাজু বাদাম কোথায় জন্মে বা কোথায় পাওয়া যায়?

পৃথীবির বিভিন্ন দেশেই কাজু বাদাম জন্মে তবে কাজু বাদামের উৎপত্তিস্থল হলো ব্রাজিল সহ মধ্য আমেরিকা এবং উত্তর দক্ষিন আমেরিকা সহ উত্তর ব্রাজিল। যদি এই দেশ গুলো কাজু বাদামের উৎপত্তিস্থল কিন্তু বর্তমানে ইন্দোনেশিয়া,মালয়েশিয়া,কেনিয়া,ভারত,তানজানিয়া,মোজাম্বিক,মাদগাস্কার প্রভৃতি দেশে উল্লেখযোগ্য হারে কাজু বাদাম চাষ হচ্ছে।

এছাড়াও এটা বর্তমানে বাংলাদেশের পাহাড়ী অঞ্চল খাগড়াছড়ি বান্দর বান ও রাঙ্গামাটিতে চাষ হচ্ছে।

কাজু বাদামের পুষ্টি গুন উপাদান

কাজুবাদাম হচ্ছে অনেক পুষ্টিগুণসম্পন্ন একটি ফল। যেটা খেলে মানুষের দৈহিক পুষ্টির অভাব দূর করা সহ তার বিভিন্ন ভিটামিন সরবরাহ করে থাকে। আর তাই কাজুবাদামে যেসকল পুষ্টিগুণ আছে সেগুলো নিম্নে উল্লেখ করা হলো

  • কাজু বাদামে রয়েছে  তামা
  •  এতে আছে  ম্যাগনেসিয়াম।
  • ম্যাঙ্গানিজ।
  • দস্তা
  • ফসফরাস
  • আয়রন
  • সেলেনিয়াম
  • থায়ামিন
  • ভিটামিন কে
  • বিটামিন বি৬
  • ক্যালরি
  • প্রোটিন
  • ফ্যাট
  • শর্করা
  • ফাইবার
  • চিনি 

কাজু বাদাম খাওয়ার নিয়ম

আপনি ইচ্ছে করলে বিভিন্নভাবে কাজু বাদাম খেতে পারেন।এটা সাধারনত ভেজে খাওয়া হয়ে থাকে। আর এর জন্য এটাকে রোদে শুকিয়ে বীজের উপরের আবরণ ছাড়িয়ে নেয়া হয়। তার পর এটাকে লবন জলে কিছু সময়ের জন্য ভিজিয়ে রাখা হয়। আর তাই দেখবেন বাজারে ভাজা লবণাক্ত স্বাদের বাদাম পাওয়া যায়।

এছাড়াও এই বাদাম কাচাঁ খাওয়া যায়। আপনি ইচ্ছে করলে মধু দিয়ে খেতে পারেন। কাজু বাদাম রান্নার কাজেও ব্যবহার করা হয় । এতে করে রান্না করা দ্রব্যের স্বাদ অনেক গুলে বেড়ে যায়। বিশেষ করে মিষ্টি জাতীয় দ্রব্য রান্না করার সময়। মোট কথা আপনি যেভাবেই এটা খাবেন এর উপকারের কোন প্রকার কমতি হবে না।

কাজু বাদাম খাওয়ার উপকারিতা/ বাদাম খাওয়ার উপকারিতা

কাজুবাদাম হচ্ছে বহু পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ একটি উপাদান। তাই এই বাদাম খেলে শরীরের গঠনে অনেক কাজে লাগে। শরীর  সুস্থ-সবল থাকতে এর জুড়ি নেই। কাজু দামে রয়েছে বহু গুন যেগুলো শুনলে আপনি অবাক হবেন। আমার বিশ্বাস এসব জানার পরে আজ থেকেই কাজু বাদাম খাওয়া শুরু করবেন। কাজু বাদামে খেলে যে সকল উপকার হয় সেই সকল বিষয় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো যাতে করে আপনারা জেনে বুঝে কাজু বাদাম খেতে পারেন।

কাজু বাদাম খেলে ওজন হ্রাস পায়

যেখানে অন্যান্য বাদামে অনেক বেশি পরিমাণে ক্যালরি থাকে সেখানে কাজু বাদামে তুলনামূলক কম পরিমানে ক্যালরি থাকার ফলে এর ৮৪ ভাগ হজম করতে এবং শুষে নিতে পারে মানব দেহ। এছাড়াও এতে রয়েছে প্রোটি ও ফাইবার যা ক্ষুধা এবং পেটভরা রাখতে সহায়তা করে বরে ওজন কমার সম্ভাবনা থাকে অনেক বেশি।

 কাজু বাদামে রক্তে শর্করার নিয়ন্ত্রণ

এই বাদামের মধ্যে শর্করা কম থাকে বিধায় এটা রক্তের শর্করা নিয়ন্ত্রনে খুবই কর্যকরী ভূমিকা পালন করে থাকে। তাই আপনি যদি আপনার শরীরের অন্যান্য পুষ্টিগুন পুরন করার জন্য কাজু বাদাম ছাড়া অন্যকোন খাবার খান সেই ক্ষেত্রে আপনার রক্তে শর্করার পরিমান বেড়ে যাবে কিন্তু কাজু বাদাম খেলে তা আর বাড়বে না।

কাজু বাদাম খেলে স্বাস্থ্যকর হৃদয় গঠন হয়

এই বাদাম খাওয়ার ফলে স্ট্রোক ও হৃদরোগের ঝুঁকি কমায়। এছাড়াও বিভিন্ন গবেষনায় দেখা গেছে কাজু বাদাম যারা নিয়মিত খায় তাদের রক্তচাপ ও ট্রাইগ্লিসারাইডের মাত্রা কমিয়ে হার্টের স্বাস্থ্য ভাল করতে সহায়তা করে। তাই কাজু বাদাম খেলে আপনার হৃদয় সবসময় ভাল থাকবে।

কাজু বাদাম খেলে ডায়াবেটিস হয়না বা নিয়ন্ত্রন থাকে

এটা থাকা   ফাইবার রক্তের শর্করা স্পাইক প্রতিরোধে সহায়তা করে এবং এতে শর্করার পরিমাণও অনেক কম থাকে। আর এই সকল গুনের কারণে রক্তে শর্করার মাত্রা কমিয়ে ডায়াবেটিস প্রতিরোধে সহায়ক হিসেবে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। তাই যদি আপনার ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রনে রাখতে চান তাহলে কাজু বাদাম খান।

কাজু বাদাম  ক্যান্সার প্রতিরোধ করে

আপনি যদি নিয়মিত কাজু বাদাম খান তাহলে ক্যান্সারের মত ভয়াবহ রোগ থেকে মুক্ত থাকতে পারবেন । কারণ কাজু বাদামে রয়েছে এন্টিঅক্সিডেন্ট যা ক্যান্সার কোষের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলে। এর বিভিন্ন উপাদান ক্যান্সারের কোষ ধ্বংস করে দেয়। এছাড়াও কাজু বাদামের প্রম্যান্থাসায়ানিডিন এবং কপার মানুষের টিউমার প্রতিরোধে সহায়ক ভূমিকা পালন করে।

ত্বক,চোখ,স্মৃতিশক্তি ও চুলের সুরক্ষায় কাজু বাদাম

আপনি যদি আপনার দেহের গুরুত্বপূর্ণ অংশের সু-রক্ষা নিশ্চিত করতে চান তাহলে আজ হতেই কাজু বাদাম খান কারণ এর  অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের পাওয়ার হাউস হিসেবে বিবেচনা করা হয়।এটা খাওয়ার ফলে আপনার স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধি পাবে, ত্বকের সৌন্দর্য বাড়বে,চুল পড়া কমে যাবে।

কাজু বাদাম হাড়েঁর জন্য উপকারী

এই বাদামের মধ্যে রয়েছে ম্যাগনেসিয়াম এবং ম্যাঙ্গানিজ যার কারণে এটি হাড়ের জন্য অনেক বেশি উপকারী। তাছাড়াও মানব দেহের জন্য প্রয়োজনীয় কপারের অবাব পূরণ করে থাকে এটি। কপারের অভাবে বিভিন্ন হাড়ের সমস্যা হওয়ার ঝুঁকি বাড়ে। তাই যদি কেহ নিয়মিত কাজু বাদাম খায় তাহলে তার হাড়েঁর সমস্যা অনেক কমে যাবে বা কোন প্রকার সমস্যা থাকবে না।

কাজু বাদাম মুখের ভিতরের রোগ কমায়

আমরা জানি আমাদের দাঁত বৃদ্ধি এবং সুন্দর রাখতে ফসফরাস খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। আর কাজু বাদামে রয়েছে প্রচুর ফসফরাস তাই যদি কেহ নিয়মিত কাজু বাদাম খায় তাহলে তার ফসফরাসের ঘাটতি দূর হয়ে তার দাঁত শক্ত ও সুন্দর থাকে।

কাজু বাদাম খেলে সংক্রামক রোগ থেকে মুক্ত থাকা যায়

এই বাদামে রয়েছে জিংক যা মানুষের শরীরে বিভিন্ন প্রকার ভাইরাসের আক্রমন থেকে রক্ষা করে। এছাড়াও কাজু বাদাম খেলে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বেড়ে যায়।

কাজু বাদাম খেলে যৌন শক্তি বৃদ্ধি পায়

এই বাদামের মধ্যে রয়েছে ফ্যাট ও কোলেস্টেরল যা দেহের যৌন শক্তি বৃদ্ধি করে এবং বীর্য তৈরি ও ঘন করতে সহয়তা

করে। তাই আপনি যদি নিয়মিত কাজু বাদাম বা অন্যান্য বাদাম খান তাহলে আপনার যৌন শক্তি অনেক ‍গুনে বৃদ্ধি পাবে।

কাজু বাদাম রক্ত স্বল্পতা কমায়

যদি কেহ নিয়মিত কাজু বাদাম খায় তাহলে শরীরের আয়রনের ঘাটতি দূর হয়ে যায়। আর আয়রনের কারণে লোহিত রক্ত

কনিকার উৎপাদন বেড়ে যাওয়ার কারণে শরীরে রক্ত স্বল্পতা রোগ দেখা যায় না।

(যদি কেহ কৃষি বিষয়ক বিভিন্ন আপডেট ভিডিও দেখতে চান তহলে আমাদের এই চ্যানেলটি দেখতে পারেন কারণ এখানে

প্রতিনিয়ত কৃষি বিষয়ক ভিডিও দেখানো হয়)

গর্ভাবস্থায় কাজু বাদাম খাওয়ার উপকারিতা

আমাদের যে সকল মায়েরা গর্ভাবস্থায় আছেন তাদের কাজু বাদাম খাওয়া দরকার কারণ কাজু বাদামে রয়েছে বেশ কিছু প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদান যা একজন মা ও তার শিশুর জন্য খুবই প্রয়োজন। এটা খেলে যে সকল উপকার হবে তা নিম্নে আলোচনা করা হল।

  • যখন মাতৃগর্ভে শিশু বৃদ্ধি পর্যায়ে থাকবে তখন কাজু বাদাম খেলে মা ও শিশুর প্রয়োজনীয় ভিটামিন এবং পুষ্টি সরবরাহ করবে।
  • মায়ের গর্ভাবস্থায় মাড়ি এবং দাঁতের ক্ষয় রোধ করে থাকে।
  • যাদের ডায়াবেটিসের ঝুঁকি আছে তাদের জন্য কাজু বাদাম খুবই দরকারি কারণ ডায়েটে কাজু বাদম খেয়ে লিপিড প্রোফাইলের মাত্রা বজায় রাখতে সহায়তা করে যার ফলে মায়ের ডায়াবেসিরে ঝুঁকি কম থাকে।

শেষকথা:

কাজু বাদামের বহুবিধ গুণ থাকার কারণে এটা শরীরের জন্য অনেক বেশি প্রয়োজনীয়। তাই আপনার যতটুকু সম্ভব

আপনার সাধ্য মতো প্রতিনিয়ত কাজু বাদাম খাওয়ার চেষ্টা করুন। উক্ত বিষয়টি যদি আপনার ভালো লেগে থাকে অবশ্যই

মন্তব্য লিখবেন । আপনার বন্ধু বান্ধবের সাথে বিষয়টি শেয়ার করবেন যাতে করে তারাও কাজু বাদামের গুনাগুন সম্পর্কে

জানতে পারে। অনেক অনেক ধন্যবাদ কষ্ট করে লেখা টি পড়ার জন্য।

আরো পড়ুন-

. বিষন্নতা নিয়ে উক্তি

২.সুন্দর কথা বলার কৌশল।

৩.. গুগলের জানা অজানা নানান তথ্য

৪. স্কুল লাইভ নিয়ে স্ট্যাটাস

৫. গুগলে মানুষ কোন বিষয়ে বেশি সার্চ করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.