Tips & Tricks

ত্বক ফর্সা হওয়ার সহজ উপায়,ঘরোয়া পদ্ধতিতে

মুখ সুন্দর করার উপায়

ত্বক ফর্সা হওয়ার সহজ উপায়,ঘরোয়া পদ্ধতিতে এ বিষয়টি আজকে আপনাদের সামনে খুবই সুনন্দর ভাবে উপস্থাপন করবো । যাতে করে আপনারা বাড়ীর সব উপকরণ দিয়েই আপনার ত্বককে আরো উজ্জ্বল এবং লাবন্যময় করতে পারেন। উজ্জ্বল প্রাণবন্ত ত্বক সবারই ভালো লাগে।

আবার কেউ যদি একটু শ্যাম বর্ণ থাকে তবে তো তার চিন্তার  শেষ নেই। মানুষ বিভিন্ন ক্রিমের সহযোগিতায় অনেক সময় তার গায়ের রঙ ফর্সা করতে পারলেও, তার ক্ষতিকর দিকও অনেক রয়েছে।যার কারনে যারা শ্যামলা বা কালো বর্ণের মানুষ তারা হীনমন্যতায় ভোগে, এবং সবার থেকে পিছিয়ে পড়ে।

আর তখন সিদ্ধান্ত নেয় বিভিন্ন ধরনের রাসায়নিক ক্রিম ব্যবহার করে ফর্সা হওয়ার জন্য । কিন্তু এই ক্রিমগুলো অনেক সময় তার অনেক ক্ষতি করে এবং ত্বকে ক্যান্সার পর্যন্ত হয়ে থাকে।ত্বক ফর্সা হওয়ার সহজ উপায়,ঘরোয়া পদ্ধতিতে আজকে দেখাবো কোন ধরনের ক্ষতিকর উপাদান ছাড়াই আপনার ত্বক ফর্সা করার সহজ উপায়।

ফর্সা হওয়ার ঘরোয়া উপায়

সবাই চায় তাকে আরো অনেক বেশি সুনন্দর ও ফর্সা দেখাক। আর তাই তাদের রূপ পরিচর্যার কোন কমতি থাকে না। বর্তমানে বাজারে অনেক ধরনের রঙ ফর্সাকারী ক্রিম পাওয়া যায়। যেগুলো রং ফর্সা করে কিন্তু এর অনেক পার্শপ্রতিক্রিয়া রয়েছে, যেমন মেস্তা, ত্বক রুক্ষ ও শুষ্ক এবং অনেক সময় স্কিন ক্যান্সার পর্যন্ত হয়ে যায়।

তাই আসুন ঘরোয়া পদ্ধতিতে, কিছু জিনিস ব্যবহার করে, কিভাবে আপনার ত্বককে আরও সুন্দর আরও ফর্সা করতে পারবেন সে বিষয়ে বিস্তারিত জেনে নেই। যেগুলোর কোন প্রকার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই।

রূপের সৌন্দর্য বাড়াতে শশা, লেবু ও মধুর ব্যবহার :

সৌন্দর্য বাড়াতে শশা
সৌন্দর্য বাড়াতে শশা

আমরা যদি আমাদের সৌন্দর্যকে আরো বাড়াতে চাই তাহলে শসা, মধু ও লেবুর বিকল্প নাই। এই তিনটা জিনিস একত্র করে আমরা খুব সহজেই ব্যবহার করে আমাদের রূপের সৌন্দর্যকে বহুগুণে বাড়িয়ে তুলতে পারি। প্রথমে আমরা শসার রস, লেবুর রস সমপরিমাণে মিশিয়ে নেব তার পর এক চা চামচ মধু ১ চা চামচ গোলাপ জল নিয়ে ভালোভাবে মিশিয়ে,

তারপর মুখ, গলা ও হাতে ভালোভাবে মেখে শুকানোর জন্য অপেক্ষা করতে হবে। এভাবে যদি আপনি নিয়মিত লাগান, তবে আপনি প্রাকৃতিক উপায়ে স্থায়ীভাবে ফর্সা হতে পারবেন।

রং ফর্সাকারী হলুদের ফেসপ্যাক:

হলুদের ফেসপ্যাক
হলুদের ফেসপ্যাক

হলুদকে বলা হয় প্রাকৃতিক ভেষজ উপাদান। আর এই উপাদানকে ব্যবহার করেই আমরা আমাদের চেহারার উজ্জলতা বাড়াতে পারি অনেক গুণে। আসুন কিভাবে হলুদ ব্যবহার করে আমরা আমাদের চেহারার উজ্জলতা বাড়াতে পারি সে বিষয়টি বিস্তারিত আলোচনা করি।

আমরা যদি রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে হলুদ দিয়ে একটি ফেইস প্যাক বানিয়ে মুখে লাগাই তবে অনেক ভালো ফল পাব । কাঁচা হলুদ হলে ভালো হয়, না হলে গুঁড়া হলুদের সাথে একই পরিমাণ উটস,মধু ,লেবুর রস ,দুধ এবং গোলাপজল নিয়ে ভালোভাবে মিশিয়ে ফেইসপ্যাক বানিয়ে মুখে লাগান।

দেখবেন কয়েকদিনের মধ্যিই আপনার ত্বক হবে দীপ্তময় ও প্রানোজ্জল।

ত্বকের রং ফর্সা করতে পাকা পেঁপের ব্যবহার :

পেঁপের ব্যবহার
পেঁপের ব্যবহার

রং ফর্সা করার জন্য বা লাবন্যময় করার জন্য পাকা পেঁপের জুড়িমেলা বার। অমরা খুবসহজেই পাকা পেঁপে ব্যবহার করে বাড়িয়ে নিতে পারি আমাদের রূপের লাবণ্যতা। আমরা হয়তো অনেকেই জানিনা পাকা পেঁপে আমাদের ত্বকের জন্য কতটা উপকারী। পাকা পেঁপে, মধু ও দুধ নিয়ে ক্রীমের মত বানিয়ে মুখে লাগাতে হবে, এবং শুকিয়ে যাওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। দেখবেন আপনার ত্বকের রং ফর্সা ও উজ্জ্বল হবে। এই উপায়ে আপনার ত্বকের কালো দাগ দূর করবে।

ত্বকের যত্নে কাঠ বাদামের ফেসপ্যাক:

কাঠ বাদামের ফেসপ্যাক
কাঠ বাদামের ফেসপ্যাক

 কাঠবাদামের ফেসপ্যাক, গায়ের রং বা ত্বকের রং ফর্সা করার, জন্য খুবই কার্যকরী ভূমিকা পালন করে থাকে। আর এই কাঠবাদাম এর ফেসপ্যাক কিভাবে বানাতে হয়,এবং কিভাবে লাগাতে হয়। সে বিষয়টা নিয়ে আপনাদের সাথে আলোচনা করছি। কাঠবাদামের ফেস প্যাক বানিয়ে আমরা সহজেই আমাদের গায়ের রং কে স্থায়ীভাবে ফর্সা করে নিতে পারি।

কাঠবাদারেম ফেসপ্যাক বানানোর পদ্ধতি ,- পরিমিত দুধ ও মধু দিয়ে ব্লেন্ড করে নিন। দেখবেন ফেসপ্যাক তৈরী হয়ে গেছে। এরপর মুখে লাগিয়ে শুকানেরা জন্য অপেক্ষা করুন। এরপর ঠাণ্ডা পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে নিন। এভাবে সপ্তাহে ২ দিন ব্যবহার করুন আর ফলাফল নিজেই দেখে নিন।

ত্বকের রং ফর্সা করতে ডাবের পানি :

"<yoastmark

এই পানি খেয়ে একদিকে যেমন আমরা পরিতৃপ্ত হই। অন্যদিকে এই পানিকে আমরা ব্যবহার করতে পারি আমাদের রূপ পরিচর্যায়। তাই কিভাবে ডাবের পানি কে আমাদের রূপ পরিচর্যা ব্যবহার করতে পারি, সে বিষয়টি নিয়ে আমরা আলোচনা করছি । ডাবের পানি ব্যবহারে ত্বকে উজ্জ্বলতা ফিরে পাবেন এবং ত্বক ফর্সা হবে।

ডাবের পানির ও পরিমাণ মত গোলাপ জল এক সাথে করে মুখে ব্যবহার করুন। এটা ব্যবহারে আপনার কালো দাগ দূর হবে ব্রন কমে যাবে এবং আপনি হয়ে উঠবেন আকর্ষণীয় ফর্সা চেহারা অধিকারিণী।

টক দই দ্বারা রূপ পরিচর্যা:

টক দই দ্বারা রুপ পরিচর্যা
টক দই দ্বারা রুপ পরিচর্যা

আমরা অনেকেই জানিনা ঘরে পাতা টকদই অথবা বাজার থেকে কিনে আনা টক দই দিয়ে সহজেই বানিয়ে নিতে পারি আমাদের ত্বক ফর্সা করার উপাদান। এই টক দই হতে পারে আপনার কালো ত্বকের ফর্সা করার টনিক । টকদই ব্যবহারে আপনার ত্বকে দারুন পরিবর্তন এনে দিবে ।

টকদই লেবুর রস ও মধু মিশিয়ে আপনার মুখ ও গলায় ব্যবহার করুন এটা মাত্র সপ্তাহে তিন দিন ব্যবহার করতে হয়। কয়েক সপ্তাহ ব্যবহার করে দেখুন দেখবেন আপনার ত্বক আগের চেয়ে অনেক বেশি সুনন্দর ও উজ্জল হয়ে গেছে।

(এখন গরমের সময়। চারদিকের পরিবেশ খুবই গরম । বাহিরে রোদ্রের জন্য বের হওয়া কষ্ট্যকর। আর এর মধ্যে আমরা সমস্যায় পড়েছি আমাদের ত্বক নিয়ে । তাই আমাদের এই লেখায় আপনি গরমে ত্বকের যত্নে কি করবেন তা জানার জন্য এখানে ক্লিক করুন)।

চন্দনের গুড়া ব্যবহার পদ্ধতি :

চন্দনের গুড়া ব্যবহার
চন্দনের গুড়া ব্যবহার

রূপচর্চায় চন্দনের ব্যবহার হয়ে আসছে বহুকাল আগে থেকেই। আগেকার যুগের রাজ-রানীরা ব্যবহার করত রূপচর্চায় এই চন্দন। এর দ্বারা কিভাবে আপনার সৌন্দর্য বৃদ্ধি পায় সে বিষয়টি দেখা যাক । এটার গুঁড়া আপনার কালো ত্বক ফর্সা করতে খুবই কার্যকরী ভূমিকা রাখবে। চন্দনের গুঁড়োর সাথে দুধের সর মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন এবং ব্যবহার করুন আপনার ত্বকে তার পর কিছু সময় অপেক্ষা করে শুকিয়ে গেলে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে নরম তোয়ালে দিয়ে মুছে নিন। দেখবেন আপনার ত্বকের উজ্জলতা অনেক বেড়ে গেছে।

আতপ চালের গুড়া ব্যবহার পদ্ধতি :

আতপ চালের গুড়া ব্যবহার
আতপ চালের গুড়া ব্যবহার

ত্বক ফর্সা করার জন্য আতপ চালের গুড়ার ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আমরা বাড়ির আতপ চাল ব্যবহার করেই তৈরী করে নিতে পারি ত্বকের রং ফর্সা করার ক্রিম। যেই ক্রিম ব্যবহার করে দিনে দিনে আপনি হয়ে উঠবেন আরো সুনন্দর আরো উজ্জল । প্রথমে কিছু আতপ চাল অথবা চিনিগুড়া চালের গুড়া  নিতে হবে এবার এর সাথে মিশিয়ে নিন গোলাপ জন ও দুধ।

ভালভাবে মেশানোর পড়  এটা আপনার ত্বকের সব জায়গায় ব্যবহার করুন। ব্যবহার করে আধঘণ্টা অপেক্ষা করে তার পর ধুয়ে ফেলুন। এবার আপনি চমকে যাবেন আপনার ত্বকের উজ্জলতা দেখে।

শেষ কথা:

আমরা সবাই সুন্দরের পূজারী। সুন্দর চেহারা বা সুন্দর মানুষ সকলেই ভালবাসে। আর আমরা আমাদেরকে সুন্দরভাবে উপস্থাপন করার জন্য রূপ পরিচর্যা করার বিকল্প নাই। তাই আসুন উপরোক্ত বিষয়গুলো যেটা আপনার সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ সেটা ব্যবহার করে আপনি আপনার চেহারার লাবণ্যতা ফিরিয়ে আনুন এবং আপনার চেহারা হোক আরো উজ্জ্বল আরো সুন্দর।

ধন্যবাদ সবাইকে কষ্ট করে পড়ার জন্য।

আরো পড়তে নিচের লিংকে ক্লিক করুন:

১. গরমে ত্বকের যত্নে করণীয়।

১.বেষ্ট ফ্রেন্ড স্ট্যাটাস।

২. বাচ্চাদের চুলকাটার স্টাইল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *