Trending

লিঙ্গ মোটা ও লম্বা করার উপায়

চিকন ও খাটো ‍লিঙ্গ মোটা ও লম্বা করার সহজ উপায়

লিঙ্গ মোটা ও লম্বা করার উপায়: আজকে একটি বিষয় নিয়ে হাজির হয়েছি যে বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু আমরা

অনেকেই লজ্জার খাতিরে কারো সাথে এই সমস্যা নিয়ে আলোচনা করতে পারিনা বা আলোচনা করি না। অনেক সময়

সমস্যা থাকলেও বলতে পারি না। আবার অনেক সময় সমস্যা আছে কিনা সেটাও বুঝতে পারিনা। তাই আজকের হেডলাইন

দেখে হয়তো আপনারা বুঝে ফেলেছেন কোন বিষয় নিয়ে আলোচনা করবো । ঠিকই বলেছেন আমরা আজকে লিঙ্গ মোটা

ও লম্বা করার উপায়  নিয়ে আলোচনা করব।  একই সাথে জেনে নিব আসলে আমাদের লিঙ্গের সাইজ কতটুকু হওয়া

প্রয়োজন? আর বাজারে প্রচলিত যে সকল ঔষধ আছে সেগুলো কি আসলে কাজে লাগে কিনা? সকল বিষয়ে বিস্তারিত

ধারনা পাবেন আমাদের এই লেখা থেকে। আপনি লেখাটা প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত পড়লে আপনি ভ্রান্ত ধারণা থেকে বেরিয়ে

আসতে পারবেন। আপনি আপনার লিঙ্গকে আপনার প্রয়োজন অনুযায়ী বড় করে নিতে পারবেন। তো চলুন বিস্তারিতভাবে

আলোচনা করি। আর একটি বিষয় আপনাদেরকে অনুরোধ করছি সেটা হচ্ছে টেনে টেনে পড়বেন না একদিক থেকে

বিস্তারিত পড়ুন  তাহলে দেখবেন লিঙ্গ মোটা ও লম্বা করার উপায় বিষয়ে আপনার পুরোপুরি একটি ধারণা তৈরি হয়ে

গেছে।

পুরুষের লিঙ্গের প্রকার বা কত প্রকার লিঙ্গ আছে?

বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গেছে পুরুষদের লিঙ্গ দেশ, জাতী, ভাষা ,আবহাওয়া ইত্যাদি ভেদে আকারে ভিন্নতা রয়েছে। কোন

দেশেরে মানুষের পেনিস ছোট আবার কোন দেশের মানুষের পেনিস বড়। তবে যাই হোক  এই বিবেচনায় লিঙ্গ কয় প্রকার

তা ভাগ না করে লিঙ্গ কে প্রকারভেদ করা হয়েছে অন্যভাবে। যেমন কিছু লিঙ্গ আছে যেগুলো উত্তেজিত অবস্থার পূর্বে এবং

উত্তেজিত হবার পর খুব তেমন একটা পার্থক্য দেখা যায় না। আবার কিছু কিছু লিঙ্গ আছে যে গুলো অনেক পার্থ্যক হয়ে

থাকে এবং দুই থেকে তিন গুন পর্যন্ত বড় হয়ে থাকে।  এই অনুসারে লিঙ্গ দুই প্রকার।

১. সোয়ার পেনিস( Shower Penis): যে লিঙ্গ উত্তেজিত অবস্থার আগে এবং পরের মধ্যে তেমন  একটা পার্থ্যক নেই। তাকে সোয়ার পেনিস বলে।

২. গ্রোয়ার পেনিস( Grower Penis): যদি পেনিস উত্তেজিত হবার পর পূর্বের তুলনায় দ্বিগুন বা তিন গুন বড় হয়ে যায় তাহলে তাকে গ্রোয়ার পেনিস বলে। 

লিঙ্গ মোটা ও লম্বা করার উপায়

অনেকের মনে প্রশ্ন লিঙ্গ মোটা ও লম্বা করার কোন উপায় রয়েছে কিনা ? উপায় থাকলে সেই উপায় গুলো কি?  সে উপায়

গুলো কি আদৌ কার্যকরী কিনা?  এই সবগুলো প্রশ্নের উত্তর দিবে আমাদের এই আলোচনা । এখান থেকে আপনি জানতে

পারবেন বিস্তারিত লিঙ্গ মোটা ও লম্বা করার উপায়। আর সেগুলোর কতটুকু কার্যকর  সে বিষয়েও বিস্তারিত ধারনা দিয়ে দিব আজকে।

কিভাবে লিঙ্গ মোটা ও লম্বা করা যায়?

লিঙ্গ মোটা ও লম্বা করার জন্য মূলত চারটি পদ্ধতি বিদ্যমান রয়েছে আর সেগুলো হলো  নিম্নরুপ।

  1. সার্জারি পদ্ধতি।
  2. ওষুধ গ্রহণের মাধ্যমে ।
  3. হরমোন রিপ্লেসমেন্ট থেরাপি যদি হরমোনের ঘাটতি থাকে।
  4. ব্যায়ামের মাধ্যমে।

উপরের চারটি পদ্ধতির মধ্যে সার্জারি পদ্ধতিতে হচ্ছে সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য পদ্ধতি। এই পদ্ধতির মাধ্যমে আপনার লিঙ্গ মোটা এবং বড় করতে পারবেন ১০০ ভাগ গ্যারান্টি তবে এর বেশ কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া রয়েছে । যেটা আপনার ভালো থেকে অনেক সময় খারাপ ফল বেশি ভয়ে নিয়ে আসতে পারে।

বর্তমানে বাজারে বিভিন্ন ঔষধ রয়েছে যে ওষুধগুলো মূলত সেক্সুয়াল উত্তেজক হিসেবে কাজ করে। এই জন্য সাময়িকভাবে দেখা যায় লিঙ্গ বড় হয়ে গেছে। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে বড় হয় না । ঔষধগুলো সাময়িকভাবে কাজ কাজে দিলেও দীর্ঘ সময় দেখা গেছে এগুলোর ফল তেমন একটা ভালো নয়।

অনেকেরই দেখা যায় শরীরে হরমোনের অভাব ছোট বেলা থেকেই। আর তাই  যদি কারো শরীরে টেস্টোস্টেরন হরমোনের অভাব দেখা যায় সে ক্ষেত্রে টেস্টরেন হরমোন দ্বারা চিকিৎসা করা যেতে পারে। আর সে ক্ষেত্রে হরমোন দ্বারা চিকিৎসা করলে অনেক সময় ভাল ফল পাওয়া যায়। তবে এর বেশ কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া রয়েছে।

যদিও একটু কষ্টসাধ্য তবে এই পদ্ধতিটি হচ্ছে সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য পদ্ধতি। যেখানে কোন প্রকারের অসুবিধা নাই।  যদি কেহ এই পদ্ধতি নিয়মিত অনুশীলন করে তখন  বরঞ্চ শরীরের পক্ষে আরও অনেক বেশি ভালো। তাই আদিকাল থেকে মানুষ তাদের লিঙ্গ  মোটা ও বড় করার জন্য এই পদ্ধতিটি ব্যবহার করে আসছে।

সার্জারি পদ্ধতির মাধ্যমে লিঙ্গ মোটা ও লম্বা করার উপায়

এই পদ্ধতিটি খুবই কার্যকর পদ্ধতি বলা যায় । কেউ যদি সার্জারি পদ্ধতির মাধ্যমে লিঙ্গ মোটা ও লম্বা করতে চায় তাহলে সে

ক্ষেত্রে সফল হওয়ার সম্ভাবনা ১০০ ভাগ। তবে এই পদ্ধতিটি এখনো বাংলাদেশে খুব একটা প্রচলন নেই। যদিও বেশ কিছু

ডাক্তারগণ বর্তমানে সার্জারির মাধ্যমে লিঙ্গ মোটা ও লম্বা করতেছে। তবে এর যেরকম একশভাগ সফলতা রয়েছে তেমনি

আছে এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া। অনেক সময় দেখা গেছে যে লিঙ্গ সঠিকভাবে শক্ত হয়না, শিথিলতা দেখা যায়। এইজন্য অনেক

সময় অনেক রোগী এই পদ্ধতি অনুসরণ করতে চায়না।

সকল বিষয় বিচার বিবেচনা করার পর যদি আপনি সার্জারি করতে চান তাহলে উপরোক্ত ডাক্তারের সাথে যোগা যোগ করতে পারেন।

ওষুধ গ্রহণের মাধ্যমে লিঙ্গ মোটা ও লম্বা করার উপায়

ওষুধ গ্রহণের মাধ্যমে অনেক সময় লিঙ্গ মোটা ও বড় করা হয়ে থাকে। তবে এই পদ্ধতিতে ডাক্তারগন  লিঙ্গ মোটা ও বড়

হওয়ার পরিবর্তে উত্তেজিত হওয়ার ওষুধ বেশি প্রদান করে থাকে। অনেক সময়  লিঙ্গ সঠিক পরিমাণে উত্তেজিত হলে এর

সাইজ অনেক বড় এবং মোটা হয়ে থাকে ।

তাই ঔষধের দ্বারা শুধু লিঙ্গে রক্ত সঞ্চালন ও উত্তেজিত হবার পরিমাণ বৃদ্ধি করানো হয়। এ পদ্ধতিটি দীর্ঘ মেয়াদী নয়  এটা

বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই স্বল্প সময়ের জন্য কাজ করে থাকে। তবে এর বেশ কিছু খারাপ দিকও রয়েছে। যে ওষুধ গুলো সেবন

করতে হবে তা হলো

  • Biomanix capsul

  • Aggra 25 mg, 100mg.

  • Vigorex 25 mg,50 mg,100mg.

  • Tadalafil- Intimate 5mg,10mg,20mg. Edysta 2.5mg,5mg,10mg,20mg তবে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ খাওয়া যাবে না।

হরমোন রিপ্লেসমেন্ট থেরাপির মাধ্যমে লিঙ্গ মোটা ও লম্বা করার উপায়

ছোটবেলা থেকেই যাদের হরমোনজনিত সমস্যা রয়েছে বিশেষ করে শরীরে টেস্টোরন হরমোন এর স্বল্পতা। এদের দেখা যায়

লিঙ্গ ছোট ও চিকন। ক্ষেত্রে শরীরে টেস্টোরন হরমোন প্রদান করা হয়। যার ফলে অনেক সময় ভাল ফল পাওয়া যায় এবং

লিঙ্গ মোট ও লম্বা হয়ে থাকে। তবেে এই পদ্ধতির বেলায় সফলতার হার মাত্র ৫০ ভাগ। তাছাড়া এর বেশ কিছু

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াও রয়েছে ।

ব্যায়ামের মাধ্যমে লিঙ্গ মোট ও লম্বা করার উপায়

লিঙ্গ মোটা ও লম্বা করার উপায়
লিঙ্গ মোটা ও লম্বা করার উপায়

এই পদ্ধতিটি হচ্ছে সবচেয়ে ফলপ্রসূ এবং বহুল প্রচলিত পদ্ধতি। আর তাই বহুকাল আগে থেকেই বিভিন্ন মনীষী, এবং

ঋষিগণ এই পদ্ধতি অনুসরণ করে তাদের এবং তাদের অনুসারীদের সমস্যার সমাধান দিয়ে আসছে। এই পদ্ধতি কোন

ধরনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নাই। তবে একটি বিষয় লক্ষণীয় এই পদ্ধতিতে রয়েছে প্রচুর পরিশ্রম এবং ধৈর্য।

কেউ যদি একটু ধৈর্য্য সহকারে এবং সময় নিয়ে এই পদ্ধতিতে অনুসরণ করে তবে সফলতার হার অনেক বেশি। আসুন

কোন পদ্ধতি গুলো অনুসরণ করে আপনি আপনার লিঙ্গ মোটা এবং লম্বা করে নিতে পারবেন তার বিস্তারিত আলোচনা

করি।

 সেকিং পদ্ধতিতে ব্যায়াম

এই পদ্ধতি টা হচ্ছে মূলত লিঙ্গের গোড়ায় ধরে আস্তে আস্তে ঝাঁকাতে হবে। কোনভাবেই ঝাঁকানোর পরিমাণ যেন অত্যাধিক

জোড়ে না হয়, কারন এতে করে ব্যাথা অনুভব হতে পারে। এ ভাবে প্রতিদিন ২০০ থেকে ৩০০ বার করতে হবে।

সিলিং পদ্ধতিতে ব্যায়াম

এ পদ্ধতিটি অনুসরণ করার জন্য আপনার লিঙ্গের গোড়ায় ধরে আস্তে আস্তে সামনের দিকে মালিশ করতে হবে। তবে

এক্ষেত্রে সবচেয়ে ভালো হয় কোন জেল, অলিভওয়েল কিংবা সরিষার তেল ব্যবহার করা। এতে করে আপনার ব্যথা অনুভূত

হবে না । মালিশের কাজটি অনেক সহজ হবে। এভাবে প্রতিদিন ৫০ থেকে ৬০ বার লিঙ্গের গোড়া থেকে মাথা পর্যন্ত হাত

দ্বারা মুষ্টি করে ধরে মালিশ করতে হবে।

টরচারিং পদ্ধতিতে ব্যায়াম

এই পদ্ধতিতে ব্যায়াম করতে গেলে আপনাকে  যা করতে হবে । তাহলো আপনার হাত দ্বারা লিঙ্গের মাঝখানে মুষ্টি করে ধরে

চাপ দিবেন আবার ছেড়ে দিবেন এভাবে ধরবেন ছাড়বেন প্রতিদিন ২০ থেকে ৩০ বার করতে হবে। যদি কেহ উপরের তিনটি

পদ্ধতি একই সাথে সময় নিয়ে করতে থাকে তবে বেশ ভাল ফল পাওয়া যায়। অনেক গবেঘনায় দেখা গেছে এই তিনটি

ব্যায়াম এক সাথে করে ভাল  ফল পেয়েছেন।

এছাড়াও আরো বেশ কিছু পদ্ধতি রয়েছে যেগুলোর আসলে কোন ভিত্তি নাই । এগুলো মূলত ব্যায়ামের পর্যায়ে পড়ে কিছু উপকারিতা পাওয়া যায়। আর এদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো-

  •  রসুন ও সরিষার তৈলের মালিশ।
  • মধুর মালিশ।
  • কালোজিরার তৈলের মালিশ।

(কৃষি বিষয়ক বিভিন্ন ভিডিও দেখতে চাইলে ক্লিক করুন এখানে)

লিঙ্গ মোটা ও লম্বা করার ইসলামি আমল

আল্লাহ পাক কুরআনে সমাধান রাখে নাই এমন কোন সমস্যা জমিনে তৈরী করেননাই। তাই কেউ যদি চায় তার সকল

প্রয়োজন এই  কুরআন দিয়ে করে নিতে পারবেন। আর এই ধরনের সমস্যার সমাধানও আল্লাহপাক কুরআনে রেখেছেন।

যদি কেহ ইসলামী শরীয়ামোতাবেক লিঙ্গের সাইজ মোটা ও লম্বা করতে চায় তাহলে,

পবিত্র কুরআনশরীফের সুরাতুল মুহমিন এর ৪৪ নং আয়াতের একটি অংশ যার বাংলা উচ্চারণ হলে : ’’ইন্নাল্লহা বাসিরুম

বিলইবাদ ‘’ এই দোয়াটি পড়ে একটি পাতিলে রাখা এক চা -চামচ তেলের মধ্যে ১৯ বার পড়ে ফু দিয়ে উক্ত তৈল লিঙ্গে

ভালভাবে মালিশ করতে হবে প্রতিদিনের তৈল প্রতিদিন ব্যবহার করতে হবে । আর এই নিয়ম অনুসারে ২ থেকে ৩ সপ্তাহ

করলেই দেখবেন ইনশাল্লাহ ভাল ফল পেয়ে গেছেন।

শেষ কথাটিও প্রয়োজনীয়

সবশেষে বলতে চাই আপনি আপনার সমস্যা নিয়ে কোন ধরনের বাজে চিন্তা করবেন না। কারণ যৌন সমস্যা আসলে কোন

বড় ধরনের সমস্যা নয় । এটা আসলে মনের সমস্যা। আপনার সঙ্গিকে তৃপ্তি দেয়ার জন্য অনেক বড় লিঙ্গ প্রয়োজন নেই।

প্রয়োজন শুধু আপনার ভালবাসা আর একটিু বাড়তী সময়। আপনি যদি নিজের মনোবল নিয়ে  উপরের দেয়া ব্যায়াম গুলো

নিয়মিত করেন তার সাথে একটু পুষ্টিকর খাবার খান তাহলেই আপনি ১০০ ভাগ সফল হবেন আপনার সঙ্গির কাছে। এর

পরেও আপনার যদি কোন ধরনের সমস্যা হয় আমরাতো আছিই আপনার সাথে। যে কোন সময় যোগাযোগ করবেন যে

কোন সমস্যা নিয়ে। আর যোগাযোগ করার জন্য কমেন্স লিখুন।  ধন্যবাদ কষ্ট করে প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত পড়ার জন্য।

আরো পড়ুন:

১. যৌন শক্তি বৃদ্ধির উপায়।

২. পুরুষাঙ্গ বৃদ্ধির উপায়

Leave a Reply

Your email address will not be published.