Uncategorized
Trending

কোন গাছ যৌন সমস্যার সমাধান করে

বীর্যমূল ও হাতিশুর গাছ খাওয়ার নিয়ম ও এর উপকারীতা

কোন গাছ যৌন সমস্যার সমাধান করে- প্রিয় বন্ধুরা আজকে এমন একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে আলোচনা করবো

বিষয়টি আমাদের সবারই জানা প্রয়োজন। কারণ আমরা চাই আমাদের শরীর ,এবং মন দুটোই ভালো থাক। আর শরীর ও

মন আমাদের ভালো থাকতে গেলে আমাদের দরকার সুস্থতা। বিশেষ করে যে সকল ভাই-বোনদের যৌন সমস্যা আছে

তাদের জন্য এ বিষয়টি খুবই গুরুত্বপূর্ণ । আর যৌন সমস্যা নাই এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া অনেক বেশি মুশকিল। আর এই

ধরনের সমস্যা হয়ে থাকে সাধারণত বিভিন্ন কারণে । যদি আপনি অথবা আপনার পরিচিত কেউ এই ধরনের সমস্যা হয়ে

থাকে তবে এই লেখাটি আপনার জন্য। তাই আসুন আজকে এখানে কিছু গাছের উপকারিতা বর্ণনা করব। যে গাছ গুলো

আপনাকে লাখ টাকার উপকার করে দিবে একদম ফ্রিতে। একদম ফ্রিতে আপনার সমস্যা সমাধান করে নিতে প্রথম থেকে

শেষ পর্যন্ত লেখাটি পড়ুন।

হাতিশুর গাছের শিকড় খাওয়ার নিয়ম ও ‍উপকারিতা

এই গাছটি অনেকেই হয়তোবা চিনবেন। আপনার আশেপাশেই এই গাজ টি রাস্তাঘাটে অথবা ক্ষেতের আইলে জন্মায়।

আপনারা খুব সহজেই এই গাজটি খাওয়ার মাধ্যমে আপনার শরীরের যৌন সমস্যা সমাধান করে নিতে পারবেন। স্ত্রীর সাথে

ঘন্টার পর ঘন্টা যৌন সুখ লাভ করতে পারবেন। মনে পাবেন অনেক আনন্দ। ৪০ কিংবা ৫০ বছরেও হয়ে উঠবেন ২৫

বছরের ন্যায় যুবক। তো আজকে আমি আপনাদেরকে বর্ণনা করব কিভাবে এই গাছটি খাবেন।

হাতিশুর গাছ খাওয়ার নিয়ম

নিয়মে ওষুধ অনিয়মে বিষ। আপনি যদি যে কোন জিনিস নিয়ম করে না খান তবে সেই খাদ্য আপনার শরীরে উপকার

করার থেকে ক্ষতির পরিমাণ বেশি হতে পারে। আজ তাই আপনি কিভাবে এই ওষুধী গাছটি খাবেন তার বিস্তারিত বর্ণনা দিব।

আর অবশ্যই এই নিয়মে গাছটি খাবেন। অন্য কোন নিয়মে গাছটি খেয়ে আমাদের দায়ি করতে পারবেন না।

  • প্রথমে পরিস্কার একটি কাাঁপান নিতে হবে।
  • দুই থেকে ৪ চা-চামচ খাঁটি মধূনিতে হবে।
  • হাতিশুর গাছের সাদা অংশের শিকড় এক ইঞ্চি নিবেন।
  • ৫০ থেকে ১০০ দানা কালো জিরা নিবেন।

এবার এই চারটি উপাদান এক সাথে পানের মধ্যে নিয়ে পানটি চিয়ে রস খেতে হবে। তবে আপনি পানের ছোবড়া খেতেও

পারেন অথবা ফেলে দিতে পারেন। তবে অবশ্যই পানের রস সবটুকু খেয়ে ফেলতে হবে। সকাল বেলা বাসি পেটে ৭ থেকে

৮ দিন খাবেন দেখবেন আপনার কি পরিবর্তন হয়েছে। আরেকটি বিষয় খেয়াল রাখবেন বিশেষ করে যেদিন সহবাস করবেন

সেদিন সকালে যে রকম খাবেন তেমনি সহবাসের ১ থেকে ২ ঘন্টা আগে আরেক বার খেয়ে নিবেন। এতে করে সাথে সাথে

এর উপকারিতা পেয়ে যাবেন। অনেকেই শুকনো শিকড় খেয়ে থাকেন সেক্ষেত্রে কাজ হবার সম্ভাবনা শূন্য। পান এবং

শিকড় অবশ্যই কাঁচা হতে হবে।

হাতিশুর গাছের শিকড় খাওয়ার মাধ্যমে যৌন রোগের সমাধান

যদি কেউ নিয়ম করে ৭ থেকে ৮ দিন উপরোক্ত নিয়মে এই গাছটি সেবন করতে পারে। আশাকরি আল্লাহর রহমতে আপনি

১০০ ভাগ যৌন সমস্যা থেকে মুক্তি পাবেন। একই সাথে আপনি হয়ে উঠবেন ২৫ বছরের যুবকের ন্যায় । আপনার স্ত্রীর

কাছে পেতে হবে না আর কোন লজ্জা।শরীরের যৌন ক্ষমতা বেড়ে যাবে কয়েক গুনে। এছাড়াও এই গাছের আরো কিছু

ওষুধী গুন আছে তবে যৌন রোগের সমস্যার জন্য এটা বেশি কাছ করে থাকে বিধায় একে সেক্সের মাহঔষুধ বলে থাকে।

হাতিশুর গাছ চেনার উপায়

বাড়ির কাছে থাকলেও অনেকেই এই গাছটি চিনতে পারেনা। আর আপনি যদি এই গাছটি না চেনেন তবে কিভাবে সেবন

করবেন। তাই আপনাদের কথা মথায় রেখে এখানে এই গাছের ছবি নিচে দেয়া হলো। তাছাড়াও আপনি খেয়াল করবেন এই

গাছের ফুল অনেকটা হাতির শুরের মত হয়। আপনার আশে পাশেই রাস্তার ধারে অথবা খেতের আইলে এই গাছটি বেশি

জন্মায়। আপনাদের আরো বুঝার সুবিধার জন্য নিচে এই গাছের ছবি দেয়া হলো যাতে করে সহজেই এই গাছটি চিনতে

পারেন।

হাতিশুর গাছ
হাতিশুর গাছ

বীর্যমূল এর শিখড় এর উপকারীতা

গাছের নাম দেখেই বুঝাযায় গাছটি আমাদের কেন খাওয়া দরকার । অনেক সময় দেখা যায় আমাদের যৌন সমস্যা থাকা

সত্বেও কারো কাছে বলতে লজ্জা পাই বা বলতে চাইনা। তাই আজ তাদের উদ্দেশ্য বলবো যাদের সেক্স এর সমস্যা আছে

তাদের জন্য এই গাছটি খুবই উপকারি । যদি কেউ অল্প সময় স্ত্রীর সাথে সহবাস করতে পারে সহবাস করতে ভয় পায়।

তাদের জন্য এই গাছটি খুবই কার্যকর। আসুন আজকে বিস্তারিত ধারণা দিব কিভাবে এই গাছটি সেবন করবেন।

বীর্যমূল গাছের শিকড় খাওয়ার নিয়ম

আপনি যদি এই গাছ থেকে উপকারিতা পেতে চান তবে আপনাকে প্রথমেই নিয়ম করে এই গাছটি খেতে হবে । অন্যথায়

আপনার উপকার হবার সম্ভাবনা খুবই কম থাকবে। তাই আমার দেয়া নিয়ম অনুযায়ী খেতে হবে। এই গাছটির মূল সাধারণত

শীত কালে বেশি পাওয়া যায়। আর তাই আপনি বাজার থেকে কিনে ঘরে রেখে দিয়ে বেশ কয়েকদিন খেতে পারেন। প্রতিদিন

সকালবেলা ও রাত্রে  ১ থেকে ২ টি মূল নিয়ে চিবিয়ে খাবেন।

বীর্যমূল গাছের শিকড় এর উপকারিতা

এই গাছটির মূলের বেশ কয়েকটি ঔষুধী গুন রয়েছে। কেউ যদি নিয়ম করে এই গাছের শিখড় খায় তবে যে সকল উপকার

পাওয়া যাবে তার মধ্যে উল্লেখ যোগ্য গুলো হলো নিম্নতম।

  • সবথেকে প্রথমে যে উপকার করে সেটা হলো বীর্য যদি পাতলা হয় তবে এটা খুব তাড়াতাড়ি ঘন করে তুলে।
  • স্ত্রী  সহবাসের সময়কে দীর্ঘায়িত করে।
  • পায়খানার সমস্যা থাকলে দূর করে।
  • প্রসাবের সমস্যা দূল করে।

আপং গাছের শিকড়ের উপকারিতা

এই গাছের রয়েছে নানা মুখি উপকারিতা। তাই আজ আমি আপনাদের এখানে এই গাছটি সম্পর্কে বিস্তারিত একটি ধারনা

দিব। বিশেষ করে যাদের যৌন সমস্যা রয়েছে। তাদের জন্য এই গাছটি বেশি কাজ করে থাকেন। আপনাকে দিবে নতুন এক

জীবন। আপনি কোন ধরনের খরচ ছাড়াই সেক্স এর সমস্যার সমাধান করতে পারবেন।

আপং গাছ খাওয়ার নিয়ম

এই গাছটি খাওয়ার নিয়ম অনেকটা হাতিশুর গাছের শিকড় খাওয়ার মতই। আপনি একই নিয়মে এই গাছটি খেতে হবে।

তবে আপনাদের একটি বিষয় বলি সেটা হলো হাতিশুর গাছের শিকড় যেমন ১ ইঞ্চি খেয়েছেন কিন্তু এটা খাবেন ২ থেকে

২.৫ ইঞ্চি পরিমাণ। আর এই গাছের শিকড়ের উপকার পাওয়ার জন্য আপনাকে একটু বেশি দিন খেতে হবে ২০ থেকে ৩০

দিন খেলে ভাল উপকার পাওয়া যায়।

আপং গাছ খাওয়ার উপকারিতা

যৌন সমস্যার সমাধান ছাড়াও এই গাছের শিকড়টি যে সকল মহিলাদের সাদাস্রাব হয় মাসিকের সময় অনিয়মিত হয় তাড়াও

খেতে পারেন। আর যদি কারে পেটের সমস্যা থাকে তাদের পেটের সমস্যার জন্যও ভাল কাজ করে। তবে সেক্স এর ‍উপকার

বেশি করে থাকে।

কোন গাছ যৌন সমস্যার সমাধান করে এর শেষ কথা

আশা করি আপনাদের কোন গাছ যৌন সমস্যার সমাধান করে  উপরোক্ত এই লেখাটি অনেক কাজে লেগেছে। আর

আপনাদের সুস্থ দেহ থাকুক এই কামনাই করি। আপনারা গাছ গুলো সেবন করে নিজেরা যেমন উপকৃত হবেন, অন্যদেরও

উপকার করার জন্য বেশি বেশি করে এই লেখাটি শেয়ার করবেন।যেন সবাই এই লেখাটা থেকে উপকার পেতে পারে। কারন

আপনার শেয়ারের ফলে যদি কারো উপকার হয় সেটাও একটি ভালো কাজের অংশ। আমাদের সবার মনে রাখা দরকার

গাছ কখনো কারো সাথে বেইমানি করে না। আর এটা খাওয়ার ফলে আপনার কোন ধরনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হওয়ার সম্ভাবনা

নাই। তাই আপনি ১০০ ভাগ সন্দেহ ছাড়া এই গুলো সেবন করতে পারেন ইনশাল্লাহ আপনার উপকার হবে। ধন্যবাদ

সবাইকে প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত পড়ার জন্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *